রবিবার, ডিসেম্বর ৪, ২০২২

মানসিক ভারসাম্যহীন রমজানকে শিকল মুক্ত করলেন দৌলতপুর থানা পুলিশ

[print_link]

মোঃ রাসেল হোসেন দৌলতপুর প্রতিনিধিঃ

মানিকগঞ্জের দৌলতপুর উপজেলায় পুলিশ সুপার নির্দেশনায় মানসিক ভারসাম্যহীন দীর্ঘ ১৪ বছর যাবত শিকল বন্দি মোঃ রমজান (৩৫ )কে শিকল মুক্ত করে চিকিৎসার দায়িত্ব নেন দৌলতপুর থানা পুলিশ।

রমজানের বাড়ির দৌলতপুর উপজেলা বিষ্ণুপুর গ্রামে। স্থানীয়ভাবে জানাজায় রমজান মানসিক ভারসাম্য হারানোর আগে অস্বাভাবিকভাবে জীবন যাপন করত ঢাকায় প্রেস কারখানায় চাকরি করে তার পরিবারের ভরণ পোষণ করত অসুস্থ হওয়ার পাঁচ বছরের মাথায় তার মা রাহেলা মারা যায় তখন ঘরে সৎ মা অসুস্থ রমজানের প্রতি পরিবারের অযত্নে আর অবহেলায় রমজান স্বাস্থ্যের আরো অবনতি হতে থাকে।

সম্প্রতি বিভিন্ন গণমাধ্যম সহ দৈনিক ক্রাইম তালাশ শিকল বন্দী অসুস্থ রমজানকে নিয়ে নিউজ প্রকাশিত হলে বিষয়টি নজরে আসে মানিকগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ গোলাম আজাদ খান পিপি এম (বা এর সাথে সাথে তিনি বিষয়টিকে গুরুত্ব দিয়ে রমজানের বিষয়ে জানার চেষ্টা করেন এবং ঘটনা সত্যতা পেয়ে রমজানের চিকিৎসার ভার বহন করেন।

রমজানের বাবা মোঃ আজহার জানান আমি অন্তত গরিব মানুষ দিনমজুরি করে কোনমতে সংসার চালায় টাকার জন্য রমজানের চিকিৎসা করাতে পারি নাই

দৌলতপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ জাকারিয়া হোসেনের সাথে কথা বললে তিনি জানান পুলিশ সুপার মোহাম্মদ গোলাম আজাদ খান পিপি এম (বার) স্যার ও সার্কেল এসপি নুরজাহান লাবনী ম্যাডামের নির্দেশনায় আমি রমজানকে দেখার জন্য তার বাড়িতে আসি এখানে এসে। দেখি রমজান আসলেই শিকল দিয়ে বাধা খুবই শারীরিকভাবে দুর্বল রমজানের সাথে কথা বলার চেষ্টা করি তাকে বুঝাই যে এসপি স্যার তার চিকিৎসা সকল ব্যবস্থা করেন এ বিষয়টা সে বুঝতে পারে উপস্থিত এলাকার লোকজনের সামনে রমজান শিকল মুক্ত করে গোসল করিয়ে খাওয়ার ব্যবস্থা করি। পরিশেষে তার পরিবারের সাথে কথা বলে রমজানকে সাথে করে নিয়ে থানায় নিয়ে আসি এবং থানার মামলা করতে আসলে কোন টাকা পয়সা লাগে না পুলিশ সব সময় আপনাদের পাশে আছে এবং ভবিষ্যতে থাকবে বাংলাদেশ পুলিশ মানবতার বন্ধু।

মানিকগঞ্জ জেলার পুলিশ সুপার মোঃ গোলাম আজাদ খান পিপি এম (বার) এর সাথে কথা বললে তিনি জানান আমি একটি পত্রিকার নিউজ এর মাধ্যমে বিষয়টি জানতে পারি তখন সাথে সাথে দৌলতপুর থানার অফিসার ইনচার্জ কে রমজানের বিষয়ে তথ্য নিতে অফিসার ইনচার্জ রমজানের বিষয়ে সত্যতা পেয়ে আমাকে জানালে আমার কথা মতো অফিসার ইনচার্জ রমজানের চিকিৎসার ব্যবস্থা করেন।

রমজান সুস্থ হয়ে ফিরে আসবে এমনটাই প্রত্যাশা এলাকাবাসীর।

আরোও

আলোচিত সংবাদ

error: Content is protected !!